1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
উজিরপুর আ’লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ - বাংলার কন্ঠস্বর ।। Banglar Konthosor
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:১২ পূর্বাহ্ন

উজিরপুর আ’লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

  • প্রকাশিত :প্রকাশিত : রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২২
  • ৭৫ 0 বার সংবাদি দেখেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক // বরিশালের উজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বরিশাল জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য এস.এম জামাল হোসেনের বিরুদ্ধে এক গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। তবে অভিযুক্ত আ’লীগ নেতা প্রভাবশালী হওয়ায় যৌন হয়রানির শিকার গৃহবধূর স্বামীসহ পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো অভিযোগ করতে সাহস পাচ্ছে না। এদিকে উপজেলা আ’লীগ সভাপতি কর্তৃক যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার বিষয়ে ভুক্তভোগী গৃহবধূর জবানবন্দিমূলক একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

 

 

যা নিয়ে চরম বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছেন খোদ নিজ দলীয় স্থানীয় পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। সেই সঙ্গে গোটা উপজেলা জুড়ে চলছে সমালোচনা ও নিন্দার ঝড়। ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ৩ মিনিট ৯ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ‘ভুক্তভোগী গৃহবধূ নিজ ঘরে তার শ্বাশুড়ির সামনে একটি চেয়ারে বসে রয়েছেন। সেখানে বসেই ওই গৃহবধূ ভিডিও সাক্ষাৎকার সংগ্রহকারীকে বলছেন, ‘ঘটনার দিন (৯ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি দুপুরের জন্য রান্না করতে ছিলেন। তার শ্বাশুড়ি অন্য কোনো এক জায়গায় দাওয়াতে যাওয়ার কারণে ঘরে ওই গৃহবধূ একাই ছিলেন।

 

 

সেই সুযোগে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এস.এম জামাল হোসেন ওই গৃহবধূর ঘরে ঢুকে এবং রান্নার কাজ করা অবস্থায় হঠাৎ তাকে পেছন থেকে ঝাপটে ধরে ও শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়। এ সময় ওই গৃহবধূ ডাক-চিৎকার দিতে চাইলে অভিযুক্ত আ’লীগ নেতা জামাল হোসেন তার মুখ চেপে ধরে এবং ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। তখন ওই গৃহবধূ নিজের ইজ্জত রক্ষার্থে আ’লীগ নেতা জামালের সাথে দীর্ঘ সময় ধস্তাধস্তি করেন এবং ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে তাকে (অভিযুক্ত) ধাক্কা মেরে ঘর থেকে বেরিয়ে প্রতিবেশির ঘরে আশ্রয় নেয়। পরবর্তীতে ওই গৃহবধূ তার স্বামীর কাছে পুরো ঘটনা জানায়।’ ভিডিও জবানবন্দিতে ওই গৃহবধূ আরও অভিযোগ করেন, ‘আওয়ামী লীগ নেতা এস.এম জামাল হোসেন অনেক আগে থেকেই বিভিন্ন সময়ে তাকে অপ্রাসঙ্গিকভাবে যৌন সম্পর্কের জন্য নানা কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো।

 

 

এমনকি মাঝে মধ্যে ওই গৃহবধূকে নিজের রুমে ডাকতেন নারীলিপ্সু ওই আ’লীগ নেতা। কিন্তু ওই গৃহবধূ কখনই তার কথা শুনতেন না, কারণ তিনি জানতেন অভিযুক্ত আ’লীগ নেতা খারাপ লোক। প্রায়ই তার রুমে বিভিন্ন নারী আসেন এবং দরজা আটকে দীর্ঘক্ষণ সময় কাটিয়ে চলে যান। এইসব কর্মকান্ড ওই গৃহবধূ দীর্ঘদিন ধরেই দেখেছেন।’ অপরদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া গৃহবধূর ভিডিও জবানবন্দির অনুসন্ধানে জানা গেছে, যৌন হয়রানির শিকার ওই গৃহবধূ অভিযুক্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস.এম জামাল হোসেনের মালিকানাধীন উজিরপুর বন্দর টার্মিনাল সংলগ্ন বাড়ির ভাড়াটিয়া। শ্বাশুড়ি ও দিনমজুর স্বামীর সাথে অভিযুক্ত আ’লীগ নেতার বাসায় তিনি ভাড়া থাকেন। সেখানেই অভিযুক্ত আ’লীগ নেতা জামাল হোসেনের আরও বেশ কয়েকটি কক্ষ রয়েছে। আর সেই কক্ষগুলোতেই প্রায়ই আ’লীগ নেতা জামাল হোসেন বিভিন্ন নারীদের নিয়ে একান্তে সময় কাটাতেন এবং ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূকেও প্রায়ই ডাকতেন। এসব বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদ সদস্য এস.এম জামাল হোসেনের কাছে চেয়ে ফোন করা হলে, তিনি সংবাদকর্মীর পরিচয় পেয়েই ফোন কলটি কেটে দেন। পরবর্তীতে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। প্রসঙ্গত, অভিযুক্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস.এম জামাল হোসেন কয়েক বছর আগে পৌর সদরের ৭নং ওয়ার্ডের এক গৃহবধূর সঙ্গে অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকার সময় হাতেনাতে ধরেছিলেন এলাকাবাসী। ওই সময় ঘটনাস্থলে গিয়ে নিজ দলীয় নেতাকর্মীরা আ’লীগ নেতা জামাল হোসেনকে উদ্ধার করে এনেছিলেন।

 

 

গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার বিষয়ে উজিরপুর মডেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঘটনাটি তার জানা নেই। এমনকি ভুক্তভোগি নারীর জবানবন্দি মূলক ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি তিনি দেখেননি কিংবা ভুক্তভোগীর পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ তিনি পাননি। অভিযোগ করলে তদন্তসাপেক্ষে অবশ্যই আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

সূত্র: বরিশাল টাইমস্

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ