1. faysal.rakib2020@gmail.com : admin :
  2. ukbanglatv21@gmail.com : Kawsar Ahmed : Kawsar Ahmed
রাষ্ট্রীয় খরচে হজে যাচ্ছেন ৬৩ জন - বাংলার কন্ঠস্বর ।। Banglar Konthosor
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

রাষ্ট্রীয় খরচে হজে যাচ্ছেন ৬৩ জন

  • প্রকাশিত :প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৯ মে, ২০২৪
  • ১৩ 0 বার সংবাদি দেখেছে
অনলাইন ডেস্ক // এ বছর বিমানের ভাড়া পরিশোধ সাপেক্ষে রাষ্ট্রীয় খরচে ৬৩ জন হজে যাচ্ছেন। বুধবার ধর্ম মন্ত্রণালয় সরকারি খরচে হজ পালনকারীদের তালিকা প্রকাশ করেছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে তালিকাসহ প্রধান হিসাব রক্ষণ ও অর্থ কর্মকর্তার কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, হজ ও ওমরা ব্যবস্থাপনা বিধিমালা, ২০২২ অনুযায়ী সরকারের আর্থিক সহায়তায় ৬৩ জনের হজ পালনে সম্মতি জ্ঞাপন করা হলো।

গত বছর প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের তালিকা অনুযায়ী ২৩ জনকে সরকারঘোষিত প্যাকেজ মূল্যের মধ্যে বিমানের ভাড়া ছাড়া অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দিয়ে হজে পাঠানো হয়েছিল।

রাষ্ট্রীয় খরচে হজ পালনের জন্য মনোনীতদের বিমান টিকিট বাবদ ১ লাখ ৯৪ হাজার ৮০০ টাকা দিতে হবে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, রাষ্ট্রীয় খরচে হজ পালনকারী ব্যক্তিরা বিমানের ফ্লাইট পাওয়া সাপেক্ষে আগামী ৬ জুন সৌদি আরব যাবেন এবং ১০ জুলাই বাংলাদেশে ফিরবেন।

সরকারের আর্থিক সহায়তায় হজে গমনেচ্ছুদের পাসপোর্টের মেয়াদ আগামী ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত থাকতে হবে।

হজে যাওয়ার আগে নির্ধারিত ৭টি বিষয়ে মেডিকেল টেস্ট করে রিপোর্টসহ নির্ধারিত টিকা কেন্দ্র হতে মেনিনজাইটিস ও ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকা গ্রহণ করবেন। টিকা গ্রহণ করার পর ই-হেলথ প্রোফাইল তৈরি এবং টিকা গ্রহণের সনদ সংগ্রহ করতে হবে বলে ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে।

মনোনীত ব্যক্তিদের খাবার বাবদ ৩৫ হাজার টাকা হজে যাওয়ার আগে আশকোনার হজ অফিস থেকে নগদ দেওয়া হবে।

হজে গমনেচ্ছু প্রত্যেক হজযাত্রীকে নিজ দায়িত্বে কুরবানির খরচ বাবদ আনুমানিক ৮০০ সৌদি রিয়াল আলাদাভাবে সঙ্গে নিতে হবে। এছাড়া ব্যক্তিগত অন্যান্য ব্যয়ের অর্থ সঙ্গে নিতে হবে।

হজে গমনের নির্ধারিত তারিখ পরিবর্তনের কোনো আবেদন গ্রহণযোগ্য হবে না। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে ব্যর্থ হলে তিনি হজে গমনে ইচ্ছুক নন বলে গণ্য হবে।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৬ জুন পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। এবার বাংলাদেশ থেকে ৮৫ হাজার ২৫৭ জন হজযাত্রী হজ পালন করবেন।

আজ বৃহস্পতিবার থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হয়েছে। এর আগে, বুধবার চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সরকারিভাবে এবার হজে যেতে সাধারণ প্যাকেজে ৫ লাখ ৭৮ হাজার ৮৪০ টাকা খরচ ধরা হয়েছে। বিশেষ হজ প্যাকেজের মধ্যমে হজ পালনে খরচ হবে ৯ লাখ ৩৬ হাজার ৩২০ টাকা।

অন্যদিকে বেসরকারিভাবে এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে সাধারণ প্যাকেজে হজ পালনে সর্বনিম্ন খরচ হবে ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৮০০ টাকা। বিশেষ প্যাকেজের মাধ্যমে হজ পালনে খরচ হবে ৬ লাখ ৯৯ হাজার ৩০০ টাকা।

রাষ্ট্রীয় খরচে হজে যাচ্ছেন যারা

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে রয়েছেন জামালপুরের মো. আনোয়ারুল ইসলাম কুড়িগ্রামের মো. নুরুল ইসলাম, নড়াইলের শেখ নওশের আলী, রাজবাড়ির মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন, গাইবান্ধার মো. তাজুল ইসলাম সরকার, কুমিল্লার বাহার উদ্দিন রেজা (বীর প্রতীক) ও তার স্ত্রী নাজমা বেগম, গোপালগঞ্জের মো. ফিরোজ ফকির, বরিশালের আল্লামা হারুন-অর-রশিদ, ঝালকাঠির তাজুল ইসলাম চৌধুরী, রংপুরের মো. ফজলাল রহমান, ঝিনাইদহের মো. নুরুল ইসলাম, কুড়িগ্রামের মো. নুরুল আমিন ও তার স্ত্রী বিউটি বেগম।

সংসদ ভবনের অভ্যর্থনাকারী মো. সাজ্জাদ হোসেন, কমিটি শাখা-৮ এর মো. জজ মিয়া।

রংপুরের হাফেজ মো. রফিকুল ইসলাম ফারাজী, টাঙ্গাইলের মো. মোন্তাজ আলী, টাঙ্গাইলের কে এম ইমদাদুল আলম (শামিম), গোপালগঞ্জের মো. আ. মান্নান খাঁন ও তার স্ত্রী মাকসুদা আক্তার, গোপালগঞ্জের হাবিবুর রহমান, রংপুরের মো. জয়নাল আবেদীন প্রধান, ঢাকা মিরপুরের মো. আ. মালেক, গাইবান্ধার মো. তোফাজ্জল হোসেন, জয়পুরহাটের মোছা. মাহফুজা বেগম, নাটোরের মো. মারুফ হোসেন।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. আসলাম উদ্দিন, প্রেস উইংয়ের মনিরুল ইসলাম ভূঁইয়া, অফিস সহায়ক পারুল পারভীন, ব্যক্তিগত সহকারী মো. আজহারুল হক, সহকারী সচিব মীর এমদাদ হোসেন, সহকারী সচিব মোসা. আমেনা খানম, গাড়িচালক মো. আবুল কালাম, গাড়িচালক মোছা. মমতাজ বেগম, উচ্চমান সহকারী মোসা. ছালমা বেগম, ওয়ার্ক চার্জড লাইনম্যান মো. মাইনুদ্দিন, সহকারী সাইন অপারেটর মো. মিজানুর রহমান, ওয়ার্ড অ্যাসিস্ট্যান্ট মো. আবুল কাশেম, পাওয়ার মেশিন অপারেটর আবু তাহের, সহকারী সচিব মো. মোতাহের হোসেন ও তার স্ত্রী মোসা. হাফেজা আক্তার, পুলিশ পরিদর্শক মো. লুৎফুর রহমান, বার্তাবাহক ফখরুদ্দিন আহমেদ, সাঁটলিপিকার কাম কম্পিউটার অপারেটর খন্দকার আজিজুর রহমান ও মো. সাজিদুর রহমান, পরিছন্নতা কর্মী গোলাপ মিয়া ও মো. আব্দুল মান্নান।

এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর উচ্চমান সহকারী মো. মিজানুর রহমান, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের গাড়িচালক মো. সাখাওয়াত হোসেন ও তার স্ত্রী রওশন আরা বেগম।

মুন্সিগঞ্জের এ কে এম মজিবুর রহমান, ধানমন্ডির অবসরপ্রাপ্ত সার্জেন্ট মো. জাকির হোসেন ও সর্বপ্রাপ্ত সচিব মো. কুদ্দুস খান।

নাটোরের বর্ষিয়ান নেতা মরহুম আব্দুল ওয়াহেদ মোল্লার দুই সন্তান সুলতানা পান্না ও মো. মেহেদী হাসান, কুমিল্লার মো. মকবুল হোসেন, জামালপুরের ফারুক আহমেদ, বরগুনার মো. আব্দুল আলীম (বাবুল), ময়মনসিংহের মো. রফিকুল ইসলাম, পটুয়াখালীর মো. আব্দুস সাত্তার আকন, খুলনার বিচারপতি মো. আক্তারুজ্জামান ও পাবনার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সিদ্দিকুর রহমান সরকারি খরচে হজ পালনে করতে পারবেন।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Comments are closed.

‍এই ক্যাটাগরির ‍আরো সংবাদ